কাঁচা হলুদ খেলে কি হয় জেনে নিন | তারুণ্য ধরে রাখতে হলুদের ব্যবহার। Health Benefits Of Turmeric

কাঁচা হলুদ খেলে কি হয় জেনে নিন | তারুণ্য ধরে রাখতে এর কোন জুড়ি নেই | Health Benefits Of Turmeric

কাঁচা হলুদ খেলে কি হয় জেনে নিন | তারুণ্য ধরে রাখতে এর কোন জুড়ি নেই | Health Benefits Of Turmeric

হলুদে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, পটাশিয়াম, ভিটামিন বি-৬, ম্যাগনেসিয়াম এবং ভিটামিন সি এবং কারকিউমিন নামক রাসায়নিক রয়েছে যা আমাদের বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা করে। তারুণ্য ধরে রাখতে হলুদের ব্যবহার অপরিসীম। আমরা দীর্ঘদিন ধরে জানি যে সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর কাঁচা হলুদ খেলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায় এবং খাবার সঠিকভাবে হজম হয়। আজকে জেনে নেওয়া যাক কাঁচা হলুদের অসংখ্য গুণাগুণ সম্পর্কে, যার বেশিরভাগই হয়তো আপনি জানেন না।

আমাদের গুগল নিউজ ফলো করতে পারেন।

কাঁচা হলুদের গুণাগুণ ও উপকারিতা | Health Benefits Of Turmeric

কাঁচা হলুদ খেলে কি হয় জেনে নিন | তারুণ্য ধরে রাখতে হলুদের ব্যবহার। Health Benefits Of Turmeric

কাঁচা হলুদে কিছু গ্যাস্ট্রো-প্রতিরক্ষামূলক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা হজমে সাহায্য করে। ফলে হজমের সমস্যা, গ্যাসের সমস্যায় কাঁচা হলুদ খুবই উপকারী।

২. সংক্রমণ এড়াতে কাঁচা হলুদ খাবার

হলুদে থাকা কারকিউমিনের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের কারণে এটি বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে খাদ্যনালীকে রক্ষা করে। আমরা প্রতিদিন যে খাবার খাই, তাতে অনেক জীবাণু থাকতে পারে। খাবারে কাঁচা হলুদ বা হলুদের গুঁড়ো খাওয়া খাদ্যনালীকে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে এবং খাদ্যনালীর প্রদাহের সম্ভাবনা কমায়।

৩. কাঁচা হলুদ হাড় যোগ করতে

প্রাচীনকাল থেকেই হাড়ের বিভিন্ন রোগে কাঁচা হলুদ ব্যবহার হয়ে আসছে। হাত বা পা মচকে গেলে চুন-হলুদ লাগানোর কথা আমরা সবাই জানি। এছাড়া ভাঙা হাড়ে কাঁচা হলুদের বিট লাগালে উপকার পাওয়া যায়। হলুদ দুধ খেলেও এ ক্ষেত্রে উপকার পাওয়া যায়। হলুদের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য ব্যথা, প্রদাহ কমায় এবং হাড়ের টিস্যু রক্ষা করে এবং ভাঙা হাড় মেরামত করতে সাহায্য করে।

৪. কাঁচা হলুদ হাড়ের ক্ষয় রোধ করে

কাঁচা হলুদে থাকা কারকিউমিন হাড়ের ক্ষয় এবং হাড় গঠনের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখে এবং হাড়কে সুস্থ ও মজবুত রাখে। কাঁচা হলুদ মেনোপজের সময় মহিলাদের যে হাড়ের ক্ষয় হয় তা থেকেও আমাদের বাঁচায়।

৫. আঘাতজনিত ব্যাধি কমাতে কাঁচা হলুদ

হলুদে থাকা কারকিউমিন পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডারের সাথে যুক্ত সমস্ত খারাপ, ভীতিকর স্মৃতি কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও, কাঁচা হলুদের প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য আমাদের মানসিক চাপ বা উদ্বেগ থেকে মুক্তি দেয়।

আরও পড়ুন ......

৬. ডায়াবেটিসে কাঁচা হলুদ

হলুদে উপস্থিত হলুদ এবং কারকিউমিন অ্যান্টি-ডায়াবেটিক এজেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া কাঁচা হলুদ ইনসুলিন হরমোনের ক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করে, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং অগ্ন্যাশয়কে সুস্থ রাখে।

৭. কাঁচা হলুদ ত্বকের বয়স কমায়

কাঁচা হলুদ ত্বকের বয়স কমায়


তারুণ্য ধরে রাখতে হলুদের ব্যবহার বলে শেষ করা যাবে না। ত্বকের উজ্জ্বলতা রক্ষা করতে এবং ত্বকের বার্ধক্য কমাতে কাঁচা হলুদ প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। তাই বিভিন্ন ক্রিমে হলুদ একটি অপরিহার্য উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কাঁচা হলুদের পেস্ট বাড়িতে তৈরি করে মুখে লাগাতে পারেন ত্বকের বিভিন্ন দাগ, বলিরেখা এবং সান ট্যান থেকে ত্বককে রক্ষা করতে। হলুদে উপস্থিত কারকিউমিনের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য ত্বককে বার্ধক্যের লক্ষণ থেকে রক্ষা করে।

৮. ক্যান্সার দূর করতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন ক্যান্সার দূর করতে সাহায্য করে। কারকিউমিন ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি বন্ধ করে এবং তাদের মৃত্যু ঘটায়। ফলে ক্যান্সারের সম্ভাবনা কমে যায়। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত কাঁচা হলুদ খেলে প্রায় ৫৬ ধরনের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে যায়।

৯. বাত প্রতিরোধে কাঁচা হলুদ

হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন নানাভাবে আর্থ্রাইটিস থেকে আমাদের বাঁচায়। কাঁচা হলুদ একটি অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এজেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং হাড়ের কোষকে রক্ষা করে। ফলে যারা রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে ভুগছেন, দেখা গেছে তারা স্বাভাবিক ফিজিওথেরাপির চেয়ে নিয়মিত কাঁচা হলুদ খেলে ব্যথা কমায় এবং হাড়ের জয়েন্ট নড়াচড়ায় অনেক সাহায্য করে।

১০. মেজাজ কাটাতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য আমাদের বিষণ্ণ মেজাজ, মেজাজ, হতাশা দূর করতে এবং আমাদের মনকে শান্ত করতে সাহায্য করে।

১১. কাঁচা হলুদ স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

কাঁচা হলুদের নিয়মিত সেবন আমাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে পারে। এছাড়াও, কাঁচা হলুদের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলি স্ট্রোক-পরবর্তী চিকিত্সায় অনেক উপকার দেয়। কাঁচা হলুদ হৃদপিণ্ডকে বিভিন্ন ক্ষতির হাত থেকেও রক্ষা করে। এছাড়া অস্ত্রোপচারের পর হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমাতেও সাহায্য করে কাঁচা হলুদ।

আরও পড়ুন......

১২. দাঁতের ক্ষয় রোধ করতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদ দাঁতের ওপরের এনামেলের স্তরকে রক্ষা করে এবং দাঁতের ক্ষয় থেকে দাঁতকে রক্ষা করে। হলুদ এর অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণের কারণে দাঁতকে জীবাণু থেকেও রক্ষা করে। অতএব, হলুদ প্রায়ই বিভিন্ন টুথপেস্টে একটি অপরিহার্য উপাদান হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এছাড়া মাড়ি থেকে রক্ত পড়া কমাতে এবং মুখের ভেতরের ক্ষত সারাতে কাঁচা হলুদ নিয়মিত খেতে পারেন।

১৩. ওজন কমানোর জন্য কাঁচা হলুদ

ওজন কমানোর জন্য কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদে স্থূলতা বিরোধী গুণ থাকায় নিয়মিত কাঁচা হলুদ খেলে শরীরে চর্বি জমতে বাধা দেয় এবং মেটাবলিজমের হার বৃদ্ধি পায়।

১৪. সর্দিতে কাঁচা হলুদ

হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন ইনফ্লুয়েঞ্জা, ঠান্ডা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া কাঁচা হলুদ আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং ঠান্ডা থেকে মুক্তি দেয়। কাঁচা হলুদে উপস্থিত ভিটামিন সি ঠান্ডা কমাতেও সাহায্য করে। 

১৫. রান্নার তেলের অক্সিডেশন কমাতে কাঁচা হলুদ

উচ্চ তাপমাত্রায় রান্না করার ফলে রান্নার তেলের অক্সিডেশন অনেক ক্ষতিকারক পদার্থ তৈরি করে যা ক্যান্সার এবং ফাইব্রোসিস হতে পারে। তাই কাঁচা হলুদের পেস্ট বা হলুদের গুঁড়া রান্নার পাত্রে লাগিয়ে তারপর তা দিয়ে রান্না করলে রান্নার তেলের অক্সিডেশন কমে যায় এবং আমাদের ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনাও কমে যায়।

১৬. পেটের ব্যথা কমাতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদে থাকা অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি  আমাদের তলপেটে ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

১৭. কাঁচা হলুদ রক্তস্বল্পতা কমায়

কাঁচা হলুদে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য থাকায় এটি রক্তশূন্যতা থেকে আমাদের বাঁচায়। মেয়েরা সাধারণত রক্তস্বল্পতার প্রবণতায় ভোগে, তাই নিয়মিত কাঁচা হলুদ খাওয়া তাদের জন্য খুবই উপকারী। এছাড়া হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন লোহিত রক্তকণিকাকে রক্ষা করে। এর উচ্চ আয়রন সামগ্রীর কারণে, হলুদ রক্তে আয়রনের ঘাটতি মেটাতেও সাহায্য করে।

১৮. আলঝেইমারে কাঁচা হলুদ

আল্জ্হেইমার্স এখন বিশ্বব্যাপী একটি মারাত্মক রোগে পরিণত হয়েছে। হলুদে থাকা কারকিউমিন আলঝেইমারের চিকিৎসায় সাহায্য করে। হলুদের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য, স্মৃতি রক্ষাকারী বৈশিষ্ট্যগুলি আলঝেইমারের চিকিৎসায় কার্যকর।

১৯. হাঁপানি রোগে কাঁচা হলুদ

হলুদে থাকা কারকিউমিন শ্বাসনালী পরিষ্কার করে এবং শ্বাস-প্রশ্বাসের উন্নতি ঘটায়। ফলে হাঁপানি থাকলে নিয়মিত কাঁচা হলুদ খাওয়ার চেষ্টা করুন, সহজেই উপকার পাবেন।

২০. কাঁচা হলুদ লিভারের প্রদাহ থেকে বাঁচায়

কাঁচা হলুদ লিভারের প্রদাহ থেকে বাঁচায়

হেপাটাইটিস আমাদের লিভারের প্রদাহ সৃষ্টি করে। কাঁচা হলুদের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-ভাইরাল বৈশিষ্ট্য হেপাটাইটিসের সময় লিভারের প্রদাহ থেকে বাঁচায়। হলুদ আমাদের হেপাটাইটিস ভাইরাস থেকেও রক্ষা করে। কাঁচা হলুদের নিয়মিত সেবন লিভারকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে

২১. থাইরয়েড এড়াতে কাঁচা হলুদ

নিয়মিত কাঁচা হলুদ খেলে আমাদের গলগণ্ড হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। এছাড়া হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন আমাদের থাইরয়েডের প্রদাহ থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।

২২. মেনোপজের সময় কাঁচা হলুদ

হলুদকে বলা হয় ফাইটো-ইস্ট্রোজেন বা ইস্ট্রোজেন হরমোনের একটি উদ্ভিদ উৎস। ইস্ট্রোজেন নারী শরীরের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হরমোন। কাঁচা হলুদের ব্যথা উপশমকারী বৈশিষ্ট্য, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ডিপ্রেশন বৈশিষ্ট্য মেনোপজের সময় নানাভাবে সাহায্য করে।

২৩. ইউরেথ্রাইটিসে কাঁচা হলুদ

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন আমাদের মূত্রনালীর সংক্রমণ থেকে বাঁচায়। তাছাড়া কাঁচা হলুদের অ্যান্টি-বায়োটিক এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণ মূত্রনালীকে জীবাণু থেকে রক্ষা করে।

২৪. কাঁচা হলুদ ক্ষত নিরাময় করে

কাঁচা হলুদের অ্যান্টিবায়োটিক এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য বিভিন্ন ক্ষত দ্রুত নিরাময়ে এবং ক্ষতস্থানে নতুন ত্বকের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। কাঁচা হলুদ অপারেটিভ পরবর্তী ব্যথা এবং পোড়া কমাতে সাহায্য করে।

২৫. স্মৃতিশক্তি  এবং মস্তিষ্কের বয়সজনিত সমস্যায়  কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে এবং বয়সজনিত সমস্যা থেকে মস্তিষ্ককে রক্ষা করে। এছাড়াও কাঁচা হলুদের নিয়মিত সেবন আমাদের 'মুড' ঠিক রাখতে এবং স্মৃতিশক্তি বাড়াতে উপকার করে।

২৬. DNA কে আঘাত থেকে রক্ষা করতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদ এবং হলুদে থাকা কারকিউমিনের কিছু জিন-প্রতিরক্ষামূলক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। ফলস্বরূপ, এটি আমাদের ডিএনএকে বিভিন্ন উপায়ে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। ক্যান্সারের ফলে সমস্ত কোষের ডিএনএ। ক্ষতিগ্রস্থ হয়, তাদের কাঁচা হলুদ কেমোথেরাপির উপাদানগুলিতে সংবেদনশীল করে। এছাড়া বিভিন্ন গবেষণা থেকে জানা গেছে, কাঁচা হলুদের পেস্ট বা নির্যাস কোষের ৮০ শতাংশ ডিএনএ রক্ষা করে।

২৭. কাঁচা হলুদ ধাতুর বিষক্রিয়া

যদি আমাদের শরীরে ধাতু দ্বারা বিষক্রিয়া হয়, কাঁচা হলুদ আমাদের তা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। সীসা, অ্যালুমিনিয়াম, পারদ, ক্যাডমিয়াম থেকে শরীরের বিষক্রিয়ায় কাঁচা হলুদ উপকারী। এই ধাতব বিষক্রিয়া এড়াতে খনির এলাকায় বসবাসকারী সমস্ত লোককে নিয়মিত কাঁচা হলুদ খাওয়া উচিত।

আরও পড়ুন......

২৮. অগ্ন্যাশয় সুস্থ রাখতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য অগ্ন্যাশয়কে সুস্থ রাখে এবং অগ্ন্যাশয়কে প্রদাহ থেকে রক্ষা করে। এছাড়া নিয়মিত কাঁচা হলুদ খেলে অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সার থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়।

২৯. পেশী টান জন্য কাঁচা হলুদ

হলুদে উপস্থিত কারকিউমিনের প্রদাহ বিরোধী গুণ আমাদের পেশীর টান সম্পর্কিত বিভিন্ন রোগ যেমন বাত, অস্টিও-আর্থ্রাইটিস, অস্টিওপোরোসিস ইত্যাদি থেকে মুক্তি দেয়। কাঁচা হলুদ পেশীর ফাইবার ভেঙ্গে যাওয়া থেকেও আমাদের রক্ষা করে।

৩০. থ্যালাসেমিয়া দূর করতে কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন আমাদের শরীরে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রতিরক্ষা তৈরি করে এবং থ্যালাসেমিয়া থেকে মুক্ত করে।

কাঁচা হলুদের গুনাগুন বলে শেষ করা যাবে না। তবে অবশ্যই নিয়ম মেনে কাঁচা হলুদ খেতে হবে।

আমাদের গুগল নিউজ ফলো করতে পারেন।

Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url