অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন । nid card bd

ডিজিটাল যুগে এসে আমরা সকল কাজ এখন বাসায় বসে অনলাইনেই করতে পারি। এতে করে আমাদের অনেক সময় বেঁচে যায় সাথে পরিশ্রমও কম হয়। এক কথায় আমাদের  লাইফ স্টাইলকে সহজ করে দেয়ার জন্য ডিজিটাল পদ্ধতির ভূমিকা তুলনাহীন।

আমাদের এই আর্টিকেলটি পরে খুব সহজে আপনি অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন। আপনার আইডি কার্ড চেক করুন অনলাইনে এবং  nid card download করুণ।

অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন । nid card bd


আজকে sabkichu.com থেকে এই সকল বিষয় আমারা ভালোভাবে জেনে নিব। এর ফলে খুব সহজেই আপনি অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন।

এনআইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র বা শুধু আইডি কার্ড যাই বলেন না প্রত্যেক নাগরিকের জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। কারন এটি আমাদের প্রথম পরিচয়পত্র।  ১৮ বছর বয়সের পর থেকে আমাদের প্রায় সকল কাজেই এই এনআইডি কার্ড বা জাতীয়পরিচয় পত্র দরকার হয়। তাই অনলাইনের মাধ্যমে আমরা খুব সহজে  আমাদের প্রয়োজনীয় সকল তথ্য দিয়ে এই কার্ডটি পেতে পারি। শুধু তাই নয়, যদি আমাদের কোন তথ্য ভুল হয় সেটাও আমরা অনলাইনের মাধ্যমে সংশোধন করে নিতে পারব। সুতরাং প্রশাসনিক অফিসে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা না দাঁড়িয়ে থেকে আপনার সকল তথ্য পূরণ করে অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন।


অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন । nid card bd

অনলাইনে কীভাবে জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য আবেদন করবেন

আপনার ১৬ বছর বয়স হলেই অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আপনি যদি নতুন ভোটার হিসাবে নিবন্ধন করতে চান তবে আপনাকে নির্বাচন কমিশনের ঠিকানা services.nidw.gov.bd-এ লগ ইন করতে হবে। তারপর ফর্ম ডাউনলোড ক্যাটাগরিতে ক্লিক করুন এবং ফর্মটি ডাউনলোড করে সঠিকভাবে পূরণ করুন। যারা একবার ভোটার হয়ে গেছেন তারা যদি পুনরায় আবেদন করেন তাহলে সেটা দণ্ডনীয় অপরাধ হিসাবে ধরা হবে।

আরও পড়ুন.........


  • আবেদন করার জন্য যা যা লাগবে
  • এসএসসি সার্টিফিকেট 
  • জন্ম নিবন্ধন 
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স / পাসপোর্ট / টিআইএন - (বয়স প্রমাণ)
  • বাড়ি ভাড়ার রসিদ/হোল্ডিং ট্যাক্সের রসিদ / ইউটিলিটি বিলের কপি 
  • পিতা, মা, পত্নীর আইডি কার্ডের অনুলিপি (যদি প্রযোজ্য হয়)
  • নাগরিকত্বের সার্টিফিকেট (যদি প্রযোজ্য হয়)


ভোটার আইডি কার্ড চেক

জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করার পর আপনি অনলাইনে আপনার নতুন আইডি দেখতে পাবেন। ভোটার হওয়ার জন্য আপনি যখন প্রথম অনলাইনে ফর্ম পূরণ করেছিলেন তখন আপনাকে ফর্মের নীচে ৮ সংখ্যার একটি ফর্ম নম্বর দেওয়া হয়েছিল। সেই নম্বর ব্যবহার করে আপনার ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে পারেন।

ভোটার আইডি কার্ড চেক


নতুন ভোটার আইডি কার্ড পেতে কতদিন সময় লাগবে?

আপনি যখন ভোটার হবেন, আপনাকে সরকারের কাছ থেকে একটি ভোটার আইডি কার্ড ফর্ম নিতে হবে এবং এটি পূরণ করতে হবে। এই ফর্মটি পূরণ করে জমা দেওয়ার পরে, আপনার নতুন ভোটার আইডি কার্ড কখন ইস্যু করা হবে তা সরকার আপনাকে জানিয়ে দেবে। তবে সাধারণত তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে আপনি এই ভোটার আইডি কার্ড পেয়ে যাবেন। আপনার যদি জরুরী ভিত্তিতে একটি আইডি কার্ডের প্রয়োজন হয়, আপনি জরুরী ভিত্তিতে একটি আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন।

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন জরুরি ভিত্তিতে আইডি কার্ডের জন্য ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে পারে। তাছাড়া, আপনি আইডি কার্ডের অনলাইন কপি নিয়ে আপনার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে পারেন।

আরও পড়ুন.........

মোবাইল নম্বর দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র

আমাদের অনেকের মধ্যে একটি ভুল ধারণা হলো, মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য জানা যায়। কিন্তু এটা সম্ভব নয়। শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্রের অধীনে থাকা কর্মচারীরা মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য জানতে পারবেন। নির্বাচন কমিশন অফিসের ভোটার আইডি কার্ড অনুমোদিত কর্মকর্তারা মোবাইলের মাধ্যমেই জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর জানতে পারবেন।


এই আর্টিকেলটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমাদের সাথে থাকুন এবং আমাদের গুগল নিউজ ফলো করুণ। ধন্যবাদ।




Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url